ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১০ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বেতনের দাবিতে টঙ্গীতে শ্রমিকদের বিক্ষোভ

[ছবি: সংগৃহীত]

গাজীপুরের টঙ্গী পূর্ব থানাধীন বিসিক এলাকায় বিপি ওয়্যার লিমিটেড কারখানায় বকেয়া বেতনের দাবিতে শ্রমিকরা বিক্ষোভ করে। বুধবার (৫ মে) সকাল ৮টায় কারখানার ফটকে বন্ধের নোটিশ দেখে শ্রমিকরা ক্ষিপ্ত হয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। কারখানাটিতে প্রায় ১ হাজার শ্রমিক কাজ করে।

 

 

টঙ্গী ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ ও কারখানার শ্রমিকরা জানায়, ফ্যাক্টরিটির শ্রমিকরা বকেয়া বেতন বাৎসরিক ছুটির টাকা দাবিতে উৎপাদন কাজ বন্ধ করে যার যার জায়গায় বসে থাকেন। বিষয়টি সমাধানের জন্য টঙ্গী পূর্ব থানা পুলিশ, ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ, কল কারখানা পরিদর্শন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা এবং বিজিএমইর কর্মকর্তারা মালিকপক্ষ শ্রমিকদের সাথে কয়েকদফায় আলোচনা করে কোনো সিদ্ধান্ত না দেয়ায় গতকাল শ্রমিকেরা যার যার বাসায় চলে যায়।

 

পরবর্তীতে মালিকপক্ষ বুধবার (৫ মে) অনিবার্য কারণবশত ফ্যাক্টরি বন্ধ রাখেন। শ্রমিকরা সকালে কাজের উদ্দেশ্যে ফ্যাক্টরিতে এসে ফ্যাক্টরী বন্ধের নোটিশ দেখতে পেয়ে সকল শ্রমিক প্রথমে ফ্যাক্টরির সামনে এসে জড়ো হয়।

 

ফ্যাক্টরির সামনে জিএমপি পুলিশ ও ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশের অবস্থান দেখতে পেয়ে তারা তাদের আন্দোলনে সহযোগিতা করার জন্য প্রথমে বিপি ওয়্যার লিমিটেড এর পার্শ্ববর্তী গার্মেন্টস এভার ফ্যাশন গার্মেন্টসের সামনে জড়ো হয়ে তাদের শ্রমিকদের নিচে নামার জন্য আহবান করেন।

 

তাদের আহ্বানে এভার ফ্যাশনের মালিক কর্তৃপক্ষ তাৎক্ষণিকভাবে গার্মেন্টস ছুটি ঘোষণা করে শ্রমিকদের ছেড়ে দেন। পরবর্তীতে বিপি ওয়্যার লিমিটেডের শ্রমিকরা বিসিকে অবস্থিত দিশারী গার্মেন্টস লিমিটেড এর সামনে এসে জড়ো হয়ে তাদের শ্রমিকদের ছেড়ে দেওয়ার জন্য বললে মালিক কর্তৃপক্ষ না শুনলে তারা গার্মেন্টসে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করেন।

 

শ্রমিকদের ইটপাটকেল নিক্ষেপে গার্মেন্টসের সামনের গ্লাস, বৈদ্যুতিক বাল্ব ভেঙ্গে যায়। পরে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ শ্রমিকদের ছত্র ভঙ্গ হওয়ার জন্য বললে তারা না শুনে গার্মেন্টসে হামলা শুরু করলে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করার জন্য ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ শ্রমিকদের উপর ১৬ রাউন্ড গ্যাস গান ও ২৩ রাউন্ড শটগানের ফাঁকা গুলি ছুড়ে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে দেন।

 

এ বিষয়ে ইনস্টল পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জালাল হোসেন জানান, শ্রমিকের প্রথমে শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থান করলেও পরবর্তীতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে বিভিন্ন কারখানায় ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশ তা প্রতিহত করে। শ্রমিক ও কারখানা কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে সমাধানের চেষ্টা করা হয়। বিসিক শিল্পনগরী এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।